Search Any Post Of WizBD.Com
 HomeTech Newsনেটওয়ার্ক বিস্তারে অবকাঠামোগত দুর্বলতার কারণে ইন্টারনেটের সেবার মান কমছে
Facebook Twitter Google Email

নেটওয়ার্ক বিস্তারে অবকাঠামোগত দুর্বলতার কারণে ইন্টারনেটের সেবার মান কমছে

আসসালামু আলাইকুম

আশাকরি সবাই ভালো আছেন
সবাই ভালো থাকেন ভালো রাখেন এই প্রত্যাশাই করি সব সময়।

নেটওয়ার্ক বিস্তারে অবকাঠামোগত দুর্বলতার কারণে মোবাইল ও ইন্টারনেটের সেবার মান বাড়ানো যাচ্ছে না, কমানো যাচ্ছে না ইন্টারনেটের খরচও।
ইন্টারনেট

আবার শহরের চেয়ে গ্রামে ইন্টারনেট সেবা পাওয়ার খরচও বেশি পড়ছে। মঙ্গলবার টেলিকম রিপোর্টার্স নেটওয়ার্ক বাংলাদেশ (টিআরএনবি-র) আয়োজিত আলোচনায় এ সমস্যার সমাধানে সব পক্ষকে একসাথে কাজ করার আহ্বান জানিয়েছে বিটিআরসি।

দেশে মোবাইল সংযোগ ব্যবহারকারীর সংখ্যা ১৪ কোটি ছাড়িয়েছে!! আর ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর সংখ্যা ৭ কোটি ৯২ লাখ!!

এর মধ্যে থ্রিজি সংযোগ ব্যবহারকারী ৬ কোটি আর ফোরজি ব্যবহার করছে মাত্র দেড় কোটি মানুষ!!

হিসেব বলছে দেশে বর্তমানে এক টেরাবাইটের ও বেশি ব্যান্ডউইথ ব্যবহার হচ্ছে যা প্রতি বছরে দ্বিগুণ হারে বৃদ্ধি পাচ্ছে!!

মোবাইল ও ইন্টারনেট ব্যবহার বাড়লেও বাড়ছে না সেবার মান। অবকাঠামোগত সীমাবদ্ধতার জন্য ইন্টারনেট সেবা পৌঁছাতে পারছে না প্রত্যন্ত গ্রামাঞ্চলেও।

টিআরএনবির সাধারণ সম্পাদক সমীর কুমার দে জানান:-

"সাত সেকেন্ডের মধ্যে কল সেটআপ হওয়ার কথা থাকলেও শুধুমাত্র রবি ছাড়া বাকি সবাই সাত সেকেন্ডের বেশি সময় লাগছে। এটা কিন্তু মানুষের জন্য একটা বড় বিলম্ব না কারণ, যে কল করে বসে থাকতে হয়। ফাইভ-জি তো বহুদূরে ফোরজি সফল হবে না যদি না নেটওয়ার্ক সংক্রানত এসব জটিলতা শেষ না হয়।"

গেল ১০ বছরে দেশে ইন্টারনেটের দাম প্রায় শতভাগ কমেছে!! বর্তমানে দেশের প্রতি এমবিপিএস ইন্টারনেট এর দাম ৩৫০ টাকা। কিন্তু প্রত্যন্ত গ্রামে সেই ইন্টারনেট পৌঁছে দিতে ব্যয় বেড়ে যাচ্ছে অপারেটরগুলোর। যার প্রভাব পড়ছে দামেও।

আইএসএমবি প্রেসিডেন্ট এম এ হাকিম জানান:-

"আমি ঢাকায় যেই প্যাকেজটা ৫০০ টাকায় কিংবা ১৫০০ টাকায় সেল করছি ট্রান্সমিশন খরচটা যখন এডেড হয় তখন কিন্তু আমার সেল, কোয়ালিটি অফ সার্ভিস এবং প্রোডাক্ট এর ভ্যালু প্রত্যন্ত অঞ্চলের জন্য ২৫০০ টাকা থেকে ৩০০০ টাকা হচ্ছে"।

নেটওয়ার্ক বিস্তারে ব্যয় বাড়লেও তা গ্রাহকদের উপর চাপিয়ে না দেওয়ার আহ্বান জানিয়েছে বিটিআরসি।

সারা দেশে এক দামে ইন্টারনেট দিতে প্রয়োজনে ভর্তুকি দেওয়া হবে বলেও জানিয়েছেন টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী।

বিটিআরসির চেয়ারম্যান জহিরুল হক অপারেটরদের উদ্দেশ্যে জানান:-

আপনারা এই টুকু খেয়াল করবেন, যতই আপনার পারসেনটেজ হিসাব করেন না কেন, যার জন্য এই সেক্টর সে যেন সুবিধাটুকু পায়। আমরা চাই আপনারা ভালো ব্যবসা করেন। সঙ্গে সঙ্গে আমার যে কাস্টমার সে যেন প্রপার সার্ভিস টুকু পায়।

২০২১ থেকে ২৩ সালের মধ্যে দেশে ফাইভ জি ইন্টারনেট চালুর জন্য অপারেটরদের এখনই প্রস্তুতি শুরু করার পরামর্শ দিয়েছেন মন্ত্রী।

2 weeks ago (12:52 pm) 136 views
Report

About Author (488)

JS Masud
Administrator

{___________Quran is only medicine of heart. and remember Allah is very powerful.____________}

Leave a Reply

You must be Logged in to post comment.

Related Posts

Copyright © WizBD.Com, 2018-2019