Search Any Post Of WizBD.Com
HomeSEO Tricksসার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন “SEO” নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা (পর্ব-৫)

সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন “SEO” নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা (পর্ব-৫)

আসসালামু আলাইকুম

আশাকরি সবাই ভালো আছেন
সবাই ভালো থাকেন ভালো রাখেন এই প্রত্যাশাই করি সব সময়।
আজ নিয়ে আসলাম সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন “SEO” নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা (পর্ব-৫)

ফ্রেন্ডলি ও আনফ্রেন্ডলি URL

ফ্রেন্ডলি URL :
http://yoursite.com/bn/what-is-seo/

আনফ্রেন্ডলি URL:
http://googlbgjks/%&27+ujeuk/%$%&-ywi


সাইটম্যাপ
সাইটম্যাপ একটি xml ফাইল যাতে কোনাে ওয়েবসাইটের যাবতীয় লিংক আরােও কিছু তথ্যসহ থাকে – যার ফলে সার্চ ইঞ্জিনগুলাে খুব সহজে এবং কার্যকরীভাবে ওযেবসাইটে ঘুরে বেড়াতে পারে এবং প্রয়ােজনীয় ওয়েবপেজগুলােকে ইনডেক্স করতে পারে । অতিরিক তথ্যের মধ্যে ওয়েবপেজটি কবে সৃষ্টি হযেছে , কবে সর্বশেষ আপডেট হযেছে , ওয়েবপেজটি অন্য পেজের তুলনায় কত গুরুত্বপূণ ইত্যাদি থাকতে পারে ।
যেমন : http://sitename/sitemap.xml
সাইটম্যাপ কিভাবে বানাবেন বিভিন্ন উপায়ে সাইটম্যাপ বানানাে যায় । নিজ হাতে লিংক ধরে ধরে কোড করে করতে পারেন এছাড়াও বিভিন্ন টুলস আছে সাইট ম্যাপ বানানাের । সাইটম্যাপ তৈরি করার জন্য কয়েকটি লিংক
http://code.google.com/p/googlesitemapgenerator/

http://wordpress.org/extend/plugins/google-sitemap-generator/

http://www.vigos.com/products/gsitemap/

http://www.xml-sitemaps.com/

হয় । তারপর
http://google.com/webmasters/tools

এ গিয়ে লগইন করে Add a site বাটনে ক্লিক করে আপনার ওয়েবসাইটের এড্রেস দিন ।

এতে আপনার ওয়েবসাইট verify করতে হবে

যেকোন একটি উপায়ে verify করতে পারবেন এবার ড্যাসবাের্ডে sitemaps > submita a sitemap অপশনে যান এবং আপনার সাইটম্যাপের নামটি টাইপ করুন ।

আপনি একাধিক । সাইটম্যাপও সাবমিট করতে পারেন , যেমন আরেকটি হতে পারে আপনার সাইট এর ইমেইজ সাইটম্যাপ । ।
উন্নত কন্টেন্ট :
উন্নত কন্টেনট এস , ই , ও , এর জনা খুবই গুরুত্বপূর্ন উন্নত লেখা নিজেই একটা এসইও । তাই এদিকে ভালো নজর দিত হবে । অযাচিত কীওয়ার্ড দিয়ে আপনি হয়তাে প্রথমদিন রেজাল্ট পেজে আসতে পারবেন , কিন্তু খুব দ্রুতই আবার হারিয়ে যেতে ও পারে যদি ভিজিটর কাক্তিত কীওয়ার্ড সম্পর্কিত কন্টেনট না পায় । তাই কীওয়ার্ড সম্পর্কিত উন্নত কন্টেনট লিখুন ।
ইমেজে alt অ্যাট্রিবিউটের ব্যবহার :
আমরা ওয়েব পেজে অনেক ইমেজ ব্যবহার করি । < img > ট্যাগের মধ্যে alt নামক একটা অ্যাট্রিবিউট আছে । এটার কাজ হল যদি কোন কারনে ইমেজ লােড হতে না পারে তাহলে ইমেজের বদলে এই অ্যাট্রিবিউটের বাক্যটা দেখানো । সে কারনে অনেকে এটার তেমন একটা গুরত্ব দেয় না । কিন্তু ইমেজের alt অ্যাট্রিবিউটে আপনি যদি ভাল বর্ণনামূলক কিছু লেখেন যা পেজের তথ্য এবং ইমেজটার সাথে সম্পর্কযুক তাহলে তথ্যের গুরত্ব অনেক বেড়ে যাবে যা সার্চ ইঞ্জিন বেশি প্রায়রিটি দিবে ।

লিংকে title অ্যাট্রিবিউটের ব্যবহার :
একটা পেজে অনেক লিংক থাকে । লিংকে title অ্যাট্রিবিউট ব্যবহার করলে যে সুবিধা পাওয়া যায় তা হল , যদি মাউস লিংকের উপরে নেওযা হয় তাহলে “ টাইটেলে থাকা Text ” হিসেবে title এ যা লিখা থাকে তা দেখায় । কিন্তু আপনি যদি লিংকের title এ সহজ কথায় লিংকটার বর্ণনা দিয়ে থাকেন তাহলে সার্চ ইঞ্জিন এটাকে বাড়তি গুরত্ব দিবে

আভ্যন্তরীন লিংক বিন্যাস (Internal Link Building) :
আপনি যদি বিখ্যাত তথ্যভিত্তিক সাইট উইকিপিডিয়া ব্যবহার করে থাকেন , তাহলে নিশ্চয়ই জানেন যে বিভিন্ন সার্চ ইঞ্জিনে তাদের স্থান বরাবরই প্রথম । তাদের আভ্যন্তরীন লিংক বিন্যাসটা অসাধারন । আপনি কেনই বা এ ট্রিকসটা ব্যবহার থেকে দূরে থাকবেন ? internai linking যেমন একটি পেজ আরেকটি পেজকে ব্যকলিংক দেয় তেমনি সার্চ ইঞ্জিন রােবটকে প্ররােচিত করে এক লিংক থেকে আরেক লিংকে জাম্পিং করে ইন্ডেক্স করার জন্য । আর নতুন লেখার সাথে সমজাতীয় পুরনাে লেখার লিংকিং এর কারনে সবগুলাে পেজই সার্চ ইঞ্জিনের নখদর্পনে থাকে যা আপনার ব্লগের রেংক বাড়ানাের ক্ষেত্রে দারুন সহায়ক ।

Robots.txt ফাইলের ব্যবহারঃ

ক্রাউলার ( crawler ) হচ্ছে একধরনের কম্পিউটার প্রােগ্রাম যা স্বয়ংক্রিয়ভাবে ইন্টারনেট ব্রাউজিং করে এবং নতুন নতুন তথ্য তার ডাটাবেইজে সংরক্ষণ ( বা ক্রাউলিং ) এবং সাজিয়ে ( বা ইন্ডেক্সিং ) রাখে । ক্রাউলার প্রােগ্রামকে প্রায় সময় ইন্ডেক্সার , বট , ওয়েব স্পাইডার , ওয়েব রােবট ইত্যাদি নামে ডাকা হয় । গুগলের ক্রউলারটি ” গুগলবট “ নামে পরিচিত । গুগলবট নিরবিচ্ছিন্নভাবে ইন্টারনেটে বিচরণ করে বেড়ায় এবং যখনই নতুন কোন ওয়েবসাইট নতুন কোন তথ্যের সন্ধান পায় , এটি গুগলের সার্ভারে সংরক্ষণ করে রাখে । robots.txt হচ্ছে এমন একটি ফাইল যার মাধ্যমে একটি সাইটের নির্দিষ্ট কোন অংশকে ইন্ডেক্সিং করা থেকে সার্চ ইঞ্জিন তথা ক্রাউলারকে বিরত রাখা যায় । এই ফাইলটিকে সার্ভারের মূল ফোল্ডারের মধ্যে রাখতে হয় । একটি সাইটে এমন অনেক পৃষ্ঠা থাকতে পারে যা ব্যবহারকারী ও সার্চ ইঞ্জিন উভয়ের কাছে অপ্রয়ােজনীয় , সেক্ষেত্রে এই ফাইলটি হচ্ছে একটি কার্যকরী সমাধান গুগলের ওয়েবমাস্টার টুলস সাইট থেকে এই ফাইল তৈরি করা যায় ।

Notollow লিংক সম্পর্কে সতর্কতা :
গুগলবট একটি সাইটকে যখন ক্রাউলিং করতে থাকে তখন সেই সাইটে অন্য সাইটের লিংক পেলে তাতে ভিজিট করে এবং সেই সাইটকেও ক্রাউলিং করে । এক্ষেত্রে একটি সাইটের পেজরেংক ( PR ) এর উপর অন্য সাইটের পেজরেংকের প্রভাব পড়ে । HTML ট্যাগের < a > ট্যাগের মধ্যে “rel” এট্রিবিউটে ” nofollow ” দিয়ে রাখলে গুগল সেই লিংকে ভিজিট করা থেকে বিরত থাকে । Nofollow লেখার নিয়ম হচ্ছে < a href="http://www.sitename.com" rel="nofollow" >display text< /a > এটি মূলত বিভিন্ন ব্লগিং সাইটে পাঠকদের মন্তব্যে অবস্থিত লিংকে ব্যবহৃত হয় , যা সস্প্যামার বা অনাকাঙিত ভিজিটরদেরকে তাদের সাইটের পেজরেংক বাড়ানাে প্রতিরােধ করে । এটি অযাচিত মন্তব্য প্রদানে স্প্যামারদেরকে নিরুৎসাহিত করে । তবে যেসকল ক্ষেত্রে স্প্যাম প্রতিরােধের ব্যবস্থা রয়েছে সেখানে nofollow ব্যবহার না করা ভাল এতে পাঠকরা মন্তব্য প্রদানে উৎসাহিত হবে এবং সাইটের সাথে তাদের যোগাযােগ আর বেশি হবে ।

মার্কেটিং (Marketing):
বিভিন্ন সােসাল নেটওয়ার্ক যেমন ফেসবুক , টুইটার , লিংকডইন এবং বুকমার্কিং সাইট যেমন ডেলিশাস ডিপ , রেডিট ব্যবহার করে ব্লগ বা ওয়েবসাইটের প্রমােট করাকেই মার্কেটিং বােঝায় । আর্টিকেল সাবমিশন এবং কমেন্টিং করাও মার্কেটিং এর একটি অংশ । একটি পোস্ট লিখার পর উপরােক্ত মাকেটিং সাইটগুলা ব্যবহার করে আপনার লিংক সাবমিট করুন


3 weeks ago (4:34 pm) 113 views
Report

About Author (391)

JS Masud
Administrator

{___________Quran is only medicine of heart. and remember Allah is very powerful.____________}

Leave a Reply

You must be Logged in to post comment.

Related Posts

Copyright © WizBD.Com, 2018