Search Any Post Of WizBD.Com
HomeAppleকেন আইফোনের এত বেশি দাম? কি ব্যবহার করা হয় আইফোন এ? জানতে হলে পোষ্টটি সম্পূর্ণ পড়ুন

কেন আইফোনের এত বেশি দাম? কি ব্যবহার করা হয় আইফোন এ? জানতে হলে পোষ্টটি সম্পূর্ণ পড়ুন

আসসালামু আলাইকুম

আশাকরি সবাই ভালো আছেন।
সবাই ভালো থাকেন ভালো রাখেন এই প্রত্যাশাই করি সব সময়।
আমরা সবাই-ই প্রায় আইফোন ব্যবহার করেছি ও আইফোনের দাম সম্পর্কে জানি। যাকে কিডনি ফোনও অনেকে উপাধি দিয়েছেন। তো কেন আইফোনের এই উপাধি ও কেন এর দাম এত বেশি তা নিয়েই আজকেই আলোচনা। তো আর কথা না বাড়িয়ে চলুন শুরু করি।
যত দামি হোক না কেন স্মার্টফোনের বাজারে আইফোন এর সাথে পাল্লা দেওয়া কঠিন। কিন্তু এক একটি আইফোনের যন্ত্রের পেছনে কত খরচ পড়ে অ্যাপলের আর কতই বা দামে সেটি বিক্রি করে তারা উত্তর নিচে।
Apple Logo


ফটো: techlector.com


বিশ্বের সবচেয়ে জনপ্রিয় প্রযুক্তিপণ্য আইফোন। 10 বছরে যার 15 টি মডেলের বিক্রি 120 কোটি সেট এর ও বেশি। কিন্তু কি আছে আইফোন এর ভিতর? কোথা থেকে তার হার্ডওয়ার আসে? কোন যন্ত্রাংশের কত দাম? তারই একটি হিসাব করছি আজ আমি। ধরা যাক প্রথম আইফোনের কথা
29 জুন 2007 সালে যেটি বাজারে ছাড়ে অ্যাপল। দুই মেগাপিক্সেলের ক্যামেরার পেছনে তাদের খরচ পড়েছে পৌনে 9 ডলার। প্রসেসর এর দাম ছিল 14 ডলার, আর 40 ডলার খরচ 4GB ফ্ল্যাশ মেমরিতে। আর সবচেয়ে বেশি 64 ডলার ব্যয় হয়েছে জার্মানি থেকে নেয়া রেটিনা ডিসপ্লের পেছনে। সব মিলিয়ে প্রথম আইফোনের যন্ত্রাংশের মূল্য ছিল 230 ডলার। যা অ্যাপল বিক্রি করেছে এর দ্বিগুণ দামে। এক বছর পর আসে আইফোন 3G। মডেলে বাড়লেও খরচ অনেক কমে গেছে ডিসপ্লে আর ফ্ল্যাশ মেমোরি তে। সব মিলিয়ে আগের আইফোনের চেয়ে আইফোন 3g তে যন্ত্রাংশের পেছনে 54 ডলার কম খরচ হয়েছে কিন্তু বাজারে 100 ডলার বাড়িয়ে সেটি বিক্রি করেছে 600 ডলার দিয়ে। আইফোনে তৃতীয় সংস্করণ 3gs। যা তার আগের সংস্করণে চেয়ে গতির দিক থেকে এগিয়ে গেছে। দুই মেগাপিক্সেলের এর থেকে বেড়ে 3-megapixel এ তবে খরচ করেছে আগের মতই 176 ডলার। দামও ছিল অপরিবর্তিত 🙂 আইফোন 4 বাজারে আসে 24 জুন 2010 সালে। এতে ব্যবহার করা হয়েছিল রেটিনা ডিসপ্লে যার দাম পড়েছে 40 ডলার। সামনে পেছনে দুই ক্যামেরার কারণে ফোনটির যন্ত্রাংশের খরচ তার আগেরটির চেয়ে 7 ডলার বেশি হয়ে যায়। বাজারে এর দাম ছিল প্রায় 600 ডলার ই। অপেক্ষাকৃত বড় পর্দার আইফোন 5 ক্যামেরা, ডিসপ্লে ও প্রসেসর এর কারণে এর খরচ বেড়ে হয়েছে 205 ডলার। যা বাজারে ছেড়েছিল অ্যাপল সাড়ে 600 ডলার এ। খরচ বৃদ্ধি অব্যাহত ছিল আইফোন 6 এও কারণ A8 প্রসেসর। সব মিলিয়ে 212 ডলার গুনতে হয়েছে অ্যাপলকে এই ডিভাইসের জন্য। যদিও এর জন্য বাড়তি দাম নেয়নি অ্যাপল। 2016 সালের সেপ্টেম্বরে বাজারে আসে আইফোন 7, ক্যামেরা, ডিসপ্লে, প্রসেসর এর উন্নতিতে এর দাম বেড়েছে 237 ডোলারে। তৃতীয় বছরের জন্য দাম আগের মতই রেখেছে অ্যাপল। আইফোন 8 2017 সালে আইফোন এক্স এর সাথে বাজারে ছেড়েছে অ্যাপল। আইফোন এক্স কে বাদ দিলে তালিকায় হ্যান্ডসেটের মধ্যে এটি সবচেয়ে খরচের ছিল অ্যাপল এর জন্য। ক্যামেরা, প্রসেসর, মেমোরি ফোনটির খরচ বাড়িয়ে দিয়েছিল প্রায় 10 ডলার। তবে পঞ্চাশ ডলার বাড়িয়ে আইফোন 8 বিক্রি করেছে প্রায় 700 ডলার এ।
তবে এখন মুক্তি পাওয়া আইফোন এক্স এস, আইফোন এক্স এস ম্যাক্স, আইফোন এক্স আর ও আইফোন এক্স এর খরচ এর মূল্য বের করতে পারিনি। আশা করছি তার খরচ এর মূল্য বের করার সাথে সাথে আপনাদের জন্য আরো একটি পোস্ট নিয়ে আসব। ততক্ষণ পর্যন্ত সবাই ভাল থাকেন সুস্থ থাকেন আল্লাহ হাফেজ

2 weeks ago (3:18 pm) 549 views
Report

About Author (391)

JS Masud
Administrator

{___________Quran is only medicine of heart. and remember Allah is very powerful.____________}

Leave a Reply

You must be Logged in to post comment.

Related Posts

Copyright © WizBD.Com, 2018